নতুন কম্পিউটারে যে সফটওয়্যার গুলো ইন্সটল করা আবশ্যক

1
741

নতুন কম্পিউটার/ল্যাপটপ কেনার পর মোটামুটি সবাই দোটানায় থাকে কোন সফটওয়্যার ইন্সটল করব আর কোনটা করব না। আসলে নতুন কম্পিউটার কেনার পর এই ধরনের সমস্যা পড়ে নি এমন মানুষ খুব কমই আছে। কম্পিউটার দোকানদারেরা যে সফটওয়্যার গুলো ইন্সটল করে দেয় সেগুলো হয় ব্রিটিশ আমলের। নয়তো এমন উজবুক মার্কা যেগুলো কোনো কাজেই আসে না। যার ফলে পড়তে হয় নানা সমস্যায়।

ইঞ্জিনিয়ারিং হেল্পলাইন বিডি টিমের আজকের আয়োজনে থাকছে এই সমস্যার সমাধান। আপনাদের জন্য একটি আপডেট এবং সবচেয়ে দুর্দান্ত সফটওয়্যারের তালিকা আমরা তৈরি করেছি। যেখানে সেরাদের সেরা পরামর্শ দেওয়া হবে। উইন্ডোজ এন্টিভাইরাস থেকে শুরু করে ইন্টারনেট ব্রাউজার, ফটো এডিটিং, ভিডিও এডিটিং, মিডিয়া প্লেয়ার সফটওয়্যার। এছাড়া আরো অনেক আকর্ষনীয় ও সিক্রেট সফটওয়্যার। যেগুলো ফ্রি’তে ডাউনলোড করতে পারবেন কোনো রকমের সমস্যা ছাড়া। তো চলুন বন্ধুরা কথা না বাড়িয়ে জেনে নেওয়া যাক।

Security Software

কম্পিউটার/ল্যাপটপ ব্যবহারের পূর্বশর্ত সুরক্ষা ব্যবস্থা শক্তিশালী করা। কম্পিউটারের সিকিউরিটি শক্তিশালী না হলে নানা রকম ভাইরাস এট্যাক করতে পারে। যার ফলে আপনার কম্পিউটারে থাকা প্রয়োজনীয় ফাইল নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এছাড়া সুরক্ষা ব্যবস্থা শক্তিশালী না হলে কম্পিউটার হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা অনেক। তাই কম্পিউটার চালানোর পুর্বে নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে যে আপনার পিসি ভাইরাস প্রোটেকশনে যথেষ্ট শক্তিশালী।

নতুন কম্পিউটার

আপনার কম্পিউটারের অপারেটিং সিস্টেম যদি উইন্ডোজ ১০ হয় তবে কোনো এন্টিভাইরাস ইন্সটল করার প্রয়োজন নেই। কারন মাইক্রোসফট উইন্ডোজ সিকুরিটি ভাইরাস প্রটেকশন, ইন্টারনেট ব্রাউজার প্রটেকশন, সফটওয়্যার কন্টোল, ডিভাইস সিকুরিটি, ডিভাইস পারফর্মেন্স এবং ফায়ারওয়াল প্রটেকশন করে থাকে। যার ফলে কোনো থার্ড পার্টি সফটওয়্যার ইন্সটল করার প্রয়োজন নেই। আর যদি আপনার অপারেটিং সিস্টেম উইন্ডোজ এক্সপি, ভিস্তা কিংবা উইন্ডোজ ৭/৮ হয়ে থাকে তবে আপনি এভিরা ফ্রি এন্টিভাইরাস অথবা এসেট এন্টিভাইরাস প্রটেকশন ব্যবহার করতে পারেন।

সরাসরি ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে অথবা কোনো কম্পিউটারের দোকান থেকে কিনে নিতে পারেন। এক্ষেত্রে আমাদের পরামর্শ থাকবে এভাস্ট এন্টিভাইরাস অথবা অন্য কোনো ফ্রি এন্টিভাইরাস ব্যবহার থেকে বিরত থাকা।

আরো পডুনঃ

Internet Browser

আজকের এই দিনে ইন্টারনেট ছাড়া কম্পিউটার কল্পনা করা প্রায় অসম্ভব। সরকারী-বেসরকারী, অফিস-আদালত, স্কুল-কলেজ সবকিছুই আজ অনলাইনের আওতায়। সাধারনত উইন্ডোজের সাথে ডিফল্টভাবে যে ব্রাউজার Internet Explorer কিংবা Microsoft EDGE ইন্সটল করা থাকে সেগুলো খুবই স্লো। এই ব্রাউজার গুলো দিয়ে কাজ করতে নানান রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

তাছাড়া থার্ডপার্টি ইন্টারনেট ব্রাউজারের মধ্যে সবার আগে যাদের নাম আসে তা হলো, Google Chrome, Mozilla Firefox, Opera Browser, Safari, UC Browser, Tor Browser ইত্যাদি। তবে সেরাদের কাতারে গুগল ক্রম থাকলেও এর আরেক নাম র‍্যাম খাদক। অর্থ্যাত আপনার পিসি ৪ জিবি র‍্যাম হোক বা ৮ জিবি বা ১৬ জিবি পুরোটা ক্রোমের পেটে যাবে। গুগল ক্রমের বিকল্প হিসেবে মজিলা ফায়ারফক্স ব্যবহার করতে পারেন। মজিলা ফায়ারফক্স অত্যন্ত স্মুথ এবং দ্রুতগতি সম্পন্ন ইন্টারনেট ব্রাউজার। এছাড়া অপেরা ইন্টারনেট ব্রাউজার, ইউসি ব্রাউজার এবং টর ব্রাউজার মোটামুটি মানের।

তবে আমাদের পরামর্শ থাকবে গুগল ক্রোম অথবা মজিলা ফায়ারফক্স ব্রাউজার হিসেবে ব্যবহার করা। উল্লেখ্য, পিসি কনফিগারেশন যদি ৪জিবি র‍্যামের কম থাকে তবে গুগল ক্রোম ব্যবহার না করে মজিলা ফায়ারফক্স ইন্সটল করা।

নতুন কম্পিউটার

Multimedia Software

অনেকে কম্পিউটার কাজের জন্য কিনে আবার অনেকে শখ করে। তবে দুইয়ের মাঝে মিল একখানে সেটা হলো মুভি/নাটক দেখা, গান শোনা। আর এজন্য দরকার মিডিয়া প্লেয়ার। অনলাইন স্ট্রিমিং অনেক সফটওয়্যার এপ্লিকেশন আছে। তবে অফলাইনে ব্যবহারের জন্যেও আছে জনপ্রিয় অনেক সফটওয়্যার। যার সাহায্যে কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই ভিডিও/অডিও প্লে করে দেখা ও শোনা যায়।

জনপ্রিয় কিছু মিডিয়া প্লেয়ারের মধ্য বহুল ব্যবহৃত VLC Player, PotPlayer, KMPlayer প্রভৃতি। উইন্ডোজের বিল্ড ইন মিডিয়া প্লেয়ারে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয়। এই মিডিয়া প্লেয়ার গুলোতে স্ট্যান্ডার্ড কোয়ালিটি ভিডিও থেকে ফোর কে ভিডিও দেখা যায় কোনো ল্যাগ ছাড়া। এছাড়া অনলাইন স্ট্রিমিং, সাবটাইটেল, সবধরনের অডিও/ভিডিও ফরমেট সাপোর্ট করে। আর এই সফটওয়্যার গুলোর ডাউনলোড ও ইন্সটল ফি একদম ফ্রি।

Audio Video Editing

বিগিনারদের অডিও এডিটিং এর জন্য অডাসিটি বেস্ট অফ বেস্ট। এই সফটওয়্যার দিয়ে নয়েজ রিমুভসহ মোটামুটি সব ধরনের কাজ করা যায়। তাছাড়া সাউন্ড মিক্সিংসহ সাউন্ড মাস্টারিং এর জন্য এফএল স্টুডিও অনেক জনপ্রিয় একটি সফটওয়্যার।

ভিডিও এডিটিং এর কথা বললে ক্যামটেসিয়া স্টুডিওওয়ান্ডারশেয়ার ফিল্মোরা এই দুটোর নাম সবার আগে আসবে। আর প্রফেশনালিজমের কথা বললে এডোবি প্রিমিয়ার প্রো, সনি ভেগাস, ফাইনাল কাট প্রো এগুলো ব্যপক জনপ্রিয়।

আরো পডুনঃ

Photo Editor

ছবি তোলা আর ছবি এডিট করে বাধাই করানো কিংবা সোসাল মিডিয়ায় আপলোড করা শখের কাজ। আর এই শখের কাজ আরও সহজ করে তুলেছে মাস্টারক্লাস সফটওয়্যার গুলো। এডোবি ফটোশপ, এডোবি লাইটরুম, পিকাসা ইত্যাদি। এই সফটওয়্যার গুলোর সাহায্যে আপনি খুব সহজে আপনার ছবি এডিট করতে পারবেন।

নতুন কম্পিউটার

Others Software

একটি কম্পিউটারে এসেন্সিয়াল কিছু সফটওয়্যার ইন্সটল করতে হয়। পিসি ক্লিন করার জন্য, পিডিএফ পড়া, স্ক্রিন রেকর্ড, বাংলা কিবোর্ড, ড্রাইভার বুস্টার, ডাউনলোডার, ফাইল আর্কাইভ করতে ইত্যাদি। এই সফটওয়্যার গুলো খুব ছোট সাইজের হলেও এগুলোর কাজ অনেক। বলা যায় এই সফটওয়্যার ছাড়া পিসি চালানো মুশকিল প্রায়।

কম্পিউটারের জাঙ্ক ফাইল পরিষ্কার করতে CCleaner কিংবা Advanced SystemCare ব্যবহার করতে পারেন। এই দুটোর উপরে কোনো সফটওয়্যার নেই। তাছাড়া Advanced SystemCare এর ফ্রি ভার্শন এভেলেভেল আছে। আর ড্রাইভ বুস্টার হিসেবে Driver Booster এর কোনো বিকল্প নেই। ড্রাইভ বুস্টারের সাহায্যে পিসির যেকোনো ড্রাইভ অটো আপডেট করে নিতে পারবেন এক ক্লিকে।

বাংলা লিখনীর জন্য বিজয় কিবোর্ডঅভ্র কিবোর্ড আছে। আর ফাইল আর্কাইভার WinRAR বেস্ট। এছাড়া ফাইল ডাউনলোডের জন্য Internet Download Manager ব্যবহার করতে পারেন। এই সফটওয়্যার দিয়ে ডাউনলোড করলে এমনিতে স্পিড অনেক বেশি পাওয়া যায়। এবং স্ক্রিন রেকর্ড আপনি ক্যামটেসিয়া কিংবা ফিল্মোরা দিয়ে করতে পারবেন। কম্পিউটারের আরেকটি দরকারী সফটওয়্যার হলো পিডিএফ রিডার। এর সাহায্যে পিডিএফ ফাইল পড়া হয়।

 

আরো পডুনঃ

 

২০১৩ সালে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্রদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে তৈরি করা হয় ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং ফেসবুক গ্রুপ। আমরা দীর্ঘ ৭ বছর ধরে ইঞ্জিনিয়ারদের নানাবিধ সমস্যার সমাধান করে আসছি। চাকুরি পড়াশুনা থেকে শুরু করে যারা ইঞ্জিনিয়ার হতে চান তাদের সু-পরামর্শ প্রদান করা আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য। স্বাগতম জানাই আমাদের ফেসবুক গ্রুপে, এইখানে ক্লিক করে এখনি জয়েন করে নিন। আশা করি একে অপরের সাথে সৌজন্যমুলক আচারণ করে ইঞ্জিনিয়ার ভাইদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবেন।